অপরাধ ও দুর্নীতি 

সাভারের আশুলিয়ায় পরিচয় গোপন রেখে বিয়ে, দেড় মাসের মাথায় স্ত্রীকে খুন করে পলায়ন : ৬ মাসের মাথায় আটক

সাভারের আশুলিয়ায় পরিচয় গোপন রেখে বিয়ে, দেড় মাসের মাথায় স্ত্রীকে খুন করে পলায়ন : ৬ মাসের মাথায় আটক

নাসিমা আক্তার (আশা):

ঢাকার অদূরে সাভারের আশুলিয়া থানাধীন নিশ্চিন্তপুর এলাকায় গার্মেন্টসে কাজ করার সুবাদে পরিচয় হয় হোসনে আরা এবং ইউনুস আলীর। একই ফ্লোরে কাজ করার সুবাদে কথা বার্তার এক পর্যায়ে জড়িয়ে পড়ে প্রেম ভালোবাসায়। সম্পর্কের এক পর্যায়ে চতুর ইউনুস বিয়ের প্রস্তাব দেয় হোসনে আরাকে। রেজিস্ট্রি করতে টাকা লাগবে এই অজুহাতে পরিচয় গোপন রেখে শুধু মৌলভী ডেকে বিয়ে করেন হোসনে আরাকে। হোসনে আরার আগে স্বামী এবং সন্তানের কথা ইউনুস জানলে গোপন করেন নিজের আগের স্ত্রী এবং সন্তানের কথা। নাটকীয় বিয়ের প্রায় দেড় মাসের মাথায় স্ত্রীকে খুন করে পালিয়ে যায় ইউনুস। ঘটনার ৬ মাসের মাথায় খুনী স্বামী গ্রেফতার হয়।

দুই হাজার আটশত টাকা মাসিক ভাড়া হিসেবে নিশ্চিন্তপুর এলাকায় আলম মিয়ার বাসার একটি রুম ভাড়া নেয় ইউনুস আলী। সেখানেও দেয়নি কোন পরিচয়পত্র। মাস খানেক এক সাথে থাকলেও মাঝে মধ্যে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ঝগড়া বিবাদ লেগেই থাকত তাদের। সেই সাথে সন্দেহের বাসা বাধে পর পুরুষের সাথে স্ত্রীর অবৈধ সম্পর্কের।

বিষয়টি তিনি শেয়ার করেন তার এক নিকট আত্মীয়ের সাথে। তার পরিকল্পনা এবং পরামর্শ মতে স্ত্রীকে খুন করে পালানোর পরিকল্পনা করে ইউনুস আলী। সেই পরিকল্পনা থেকেই গত বছরের ৬ সেপ্টেম্বর স্ত্রীর গলায় গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরুদ্ধ করে খুন করে স্ত্রীর লাশ বাথ রুমে রেখে স্ত্রীর মোবাইল, কানের দুল এবং নুপুরসহ অন্যান্য মালামাল নিয়ে রুমের বাইরে থেকে দরজায় তালা লাগিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। ইউনুছ আলী আশ্রয় নেয় আগের স্ত্রীর বাড়ি নাটোর জেলার সিংড়া থানায় লাড়ুয়া হাতিয়ানদহ গ্রামে শ্বশুর বাড়িতে।

ঘটনার দুই দিন পর ঘরের ভেতর থেকে লাশের গন্ধ বের হলে এলাকাবাসী আশুলিয়া থানা পুলিশকে সংবাদ দেয়। সংবাদ পেয়ে আশুলিয়া থানা পুলিশ উক্ত ঘরের তালা ভেংগে বাথ রুমের ভেতর থেকে ভিকটিম হোসনে আরার অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে। ভিকটিম হোসনে আরা (৩৫) রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার খিয়ারপাড়া গ্রামের মৃত মনিরুজ্জামানের মেয়ে।

উক্ত ঘটনায় ভিকটিম এর বোন স্বপ্না বেগম বাদী হয়ে ইউনুস আলীর জায়গায় ইউসুফ নাম উল্লেখ করে থানায় একটি মামলা করলেও সেখানে ঠিকানা উল্লেখ করা হয় অজ্ঞাত হিসেবে। আশুলিয়া থানা পুলিশ ৩ মাস মামলাটি তদন্ত করলেও তেমন কোন অগ্রগতি না থাকায় মামলার বাদি লোক মুখে পিবিআই এর কর্মকা- সম্পর্কে অবগত হয়ে পিবিআই ঢাকা জেলা অফিসে এসে মামলাটি স্ব-উদ্যোগে নেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন।

মামলাটি পিবিআই এর শিডিউলভুক্ত হওয়ায় পিবিআই হেডকোয়ার্টার্স এর নির্দেশে পিবিআই ঢাকা জেলার সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) সালেহ ইমরান গত ১১ ডিসেম্বর মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করেন।

মামলাটির তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই সালেহ ইমরান জানান, তদন্তভার গ্রহণ করে স্থানীয় সোর্স এবং প্রযুক্তিগত তথ্য বিশ্লেষণ করে জানতে পারি অভিযুক্ত ব্যক্তি ইউসুফ নয় তার আসল নাম ইউনুস আলী (২৫)। তিনি পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার চান্দাই পশ্চিমপাড়া গ্রামের মৃত বাবু প্রামাণিকের ছেলে। মামলার পর থেকে অভিযুক্ত ইউনুস এর ব্যাপারে খোঁজ খবর নিয়ে ঘটনার সাথে তার সম্পৃক্ততা নিশ্চিত হয়ে ১১ ফেব্রুয়ারি সোমবার নাটোর জেলার সিংড়া থানায় লাড়ুয়া হাতিয়ানদহ থেকে গ্রেফতার করেন বলেও জানান তিনি।

তিনি বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত ইউনুস স্ত্রী হত্যার কথা স্বীকার করেছে এবং তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার স্ত্রী ভিকটিম হোসনে আরার ব্যবহৃত মোবাইল ফোন এবং পায়ের নুপুর উদ্ধার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

পিবিআই ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হাসান বারী নূর জানান, মামলাটি বর্তমানে তদন্তাধীন আছে। আসামিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ঘটনার সাথে আরও কারো সম্পৃক্ততা আছে কিনা তা যাচাই করে দেখা হচ্ছে।

Related posts

Leave a Comment

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com