বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি 

দ্রুতগতির ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে

দ্রুতগতির ইন্টারনেট পৌঁছে যাচ্ছে গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে

উন্নত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে একুশ শতকের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় দেশের দুর্গম এলাকা থেকে শুরু করে গ্রাম থেকে গ্রামান্তরে পৌঁছে যাচ্ছে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবা। দ্রুত ও কম টাকার ইন্টারনেট প্যাকেজ, আনলিমিটেড প্যাকেজ উপজেলা পর্যায় ও গ্রামাঞ্চলে না থাকার কারণে গ্রামের তরুণ যুবকরা ও ফ্রিল্যান্সাররা হাই স্পিডের ইন্টারনেট সেবা পেতে যখন শহরমুখী হতে শুরু করেছিল, ঠিক তখনি স্বল্প মূল্যের দ্রুত গতির ইন্টারনেট সেবা গ্রামাঞ্চলে পৌঁছে দিয়েছে বর্তমান সরকার।
সরকারের আইসিটি বিভাগের ইনফো সরকার-৩ প্রকল্পের আওতায় দেশের ইউনিয়নগুলোতে ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পৌঁছানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে গ্রামাঞ্চলে উচ্চগতির ইন্টারনেট সেবা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে দেশের দুই হাজার ৭০০টি ইউনিয়নে অপটিক্যাল ফাইবার সংযোগ তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। ইন্টারনেট সেবা দাতা প্রতিষ্ঠানগুলো সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রথম ৩ মাস বিনামূল্যে ইন্টারনেট সেবা দেওয়ার পরিকল্পনা করছে।
দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলসহ গ্রামে ইন্টারনেট সেবা পৌঁছে দেয়ার বিষয়ে সম্প্রতি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, আগামীর সমৃদ্ধির জন্য প্রযুক্তির কোনো বিকল্প নেই। ১০ বছর আগেও ঢাকার বাইরে ব্রডব্যান্ড কানেকশন ছিল না। ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাইরে অপটিক্যাল ফাইবার ছিল না। এখন ইউনিয়ন পর্যন্ত অপটিক্যাল ফাইবার নেটওয়ার্ক আছে। ইন্টারনেট গ্রাহক আছে প্রায় ১০ কোটি। ৯৫ শতাংশ মানুষ বিদ্যুতের আওতাধীন। ‘কানেক্টেড বাংলাদেশ’ প্রকল্পের আওতায় দুর্গম পাহাড়ি অঞ্চলসহ দেশের সব ইউনিয়নে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সংযোগ দেওয়ার জন্য কাজ করছে সরকার।
সম্প্রতি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি’র সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলের (এসওএফ) টাকা তথ্যপ্রযুক্তির বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে বিশেষ করে দুর্গম, প্রত্যন্ত এলাকা, দ্বীপাঞ্চলে ইন্টারনেট সেবা ও কানেক্টিভিটি তৈরিতে ব্যয়ও শুরু হয়েছে। হাওর এলাকায় একটি গ্রামের সঙ্গে আরেকটির দূরত্ব ১০ থেকে ১২ কিলোমিটার। ফলে স্কুলগুলোও দূরে দূরে। এই দুর্গম এলাকার শিশুদের শিক্ষা ব্যবস্থা ডিজিটাল করা গেলে তারা সম শিক্ষা লাভ করতে পারবে।
বর্তমান সরকারের ‘গ্রাম হবে শহর’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে দ্রুতগতির ইন্টারনেট সেবাসহ প্রয়োজনীয় নাগরিক সুবিধা পৌঁছে দিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন সরকার। গ্রামের মানুষ এখন নিজ বাড়িতে বসেই দ্রুত গতির ইন্টারনেটের মাধ্যমে ব্যবসা-বাণিজ্য, নাগরিক সেবা গ্রহণ করতে পারছেন। ফলে গ্রামীণ জনপদে দক্ষতা উন্নয়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি দূর হয়েছে ডিজিটাল বৈষম্য।

Related posts

Leave a Comment

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com