রাজনীতি 

ঢাকা জেলার সাভার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাজীব, ভাইস চেয়ারম্যান শাহাদাৎ ও সুমিকে নির্বাচিত ঘোষণা

ঢাকা জেলার সাভার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রাজীব, ভাইস চেয়ারম্যান শাহাদাৎ ও সুমিকে নির্বাচিত ঘোষণা

নাসিমা আক্তার (আশা):

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সাভার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম রাজীব এবং ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) নির্বাচিত হয়েছেন আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শাহাদাৎ হোসেন খান ও ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) নির্বাচিত হয়েছে ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী সহ-ধর্মিনী মিসেস ইয়াসমিন আক্তার সুমি। আজ বৃহস্পতিবার ঢাকা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ও রিটার্নিং অফিসার মোঃ শহিদুজ্জামান তাদের বিজয়ী ঘোষণা করে গণ-বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেন।

সাভঅর উপজেলার ১২টি ইউনিয়ন ও সাভার পৌরসভার ৯টি ওয়ার্ড নিয়ে সাভার উপজেলা পরিষদ গঠিত। এ উপজেলায় মোট ভোটার সংখ্যা ৮ লাখ ৭৯ হাজারের অধিক। সাভার উপজেলায় পুরুষের চেয়ে নারী ভোটার সংখ্যা বেশী। মূলত সাভার উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানবৃন্দ সবচেয়ে বেশী ভোটারের প্রতিনিধিত্ব করে থাকেন। এবারই প্রথম সাভার উপজেলায় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস গড়লেন বলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা অনুভূতি ব্যক্ত করেছেন।

সাভার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছিলেন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ও সাভার কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। বর্তমানে তিনি সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সুমি চৌধুরীও ছিলেন একক প্রার্থী। তবে পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ইয়ারপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজু দেওয়ান মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও তা ছিল ত্রুটিপূর্ণ। একজন ঋণ খেলাপীর জামিনদার এবং প্রার্থী হিসেবে ২৫০ জনের স্বাক্ষর নেয়া হলেও তদন্তে সেখানে কয়েকজনের স্বাক্ষরে অমিল পাওয়া যায়। রাজুর মনোনয়নপত্র বাতিল করা হলেও তিনি আপীল করেন। সেখানেও তিনি হেরে যান। এরপর আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাবেক আহবায়ক শাহাদাৎ হোসেন খানের জয়ের পথ প্রসারিত হয়।

জেলা রিটার্নিং অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৩ মার্চ মনোনয়পত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ছিল। তবে যেহেতু কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল না তাই ১৪ মার্চ চূড়ান্ত প্রাার্থী তালিকা প্রকাশে ৩ জনই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

Related posts

Leave a Comment

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com