জামায়াত ছাড়ার প্রশ্নে যেখানে দোল খাচ্ছে বিএনপি

জামায়াত ছাড়ার প্রশ্নে যেখানে দোল খাচ্ছে বিএনপি
নিউজক্যাম্প২৪ রিপোর্ট
বিএনপিকে যখনই যুদ্ধাপরাধীদের দল জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে বলা হয় বা জামায়াত ছাড়া নিয়ে তাদের চাপ বাড়ে তখন বিএনপি তরফে বরাবরই একটি ক্লিশে জবাব আসে যে, জামায়াতের সঙ্গে তাদের আদর্শিক কোনও ঐক্য নেই, বরং এটি একটি নির্বাচনি জোট। কিন্তু জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে বিএনপির অনীহার কারণ আলাদা।

বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপি যদি জামায়াতের সঙ্গ ছাড়ে তবে তারা বেশকিছু ক্ষতির সম্মুখীন হবে। আর এই সংশয়েই জামায়াত ছাড়ার প্রশ্নে দোল খাচ্ছে বিএনপি।

বছর কয়েক আগে বিএনপির একজন নীতিনির্ধারক, বিশেষ করে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বলে পরিচত এক সাংবাদিককে জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, বিএনপি কেন জামায়াতের সঙ্গ ছাড়তে পারে না? জবাবে তিনি বলেছিলেন, জামায়াতের মতো একটি বিতর্কিত এবং উগ্র ডানপন্থী দলের সঙ্গে সংসার করতে হয়তো বেগম জিয়া নিজেও চান না। কিন্তু দলের ভেতরে একটি প্রভাবশালী অংশই মনে করে, জামায়াত ছাড়া রাজপথে আওয়ামী লীগের মতো অত্যন্ত শক্তিশালী দলকে মোকাবিলা করা কঠিন। কারণ, বিএনপি তার মাঠের শক্তি, বিশেষ করে তার ছাত্র ও যুব সংগঠনের শক্তি ও দুর্বলতা সম্পর্কে জানে। সুতরাং বিএনপি যখন সরকারে থাকে, তখন সরকারের বাইরে থাকা দল, বিশেষ করে আওয়ামী লীগের আন্দোলন মোকাবিলা করতে এবং যখন সরকারের বাইরে থাকে তখন সরকারবিরোধী আন্দোলন জমাতে তাকে জামায়াতের মতো ক্যাডারভিত্তিক দলের আশ্রয় নিতে হয়।

এদিকে অতীতের বিভিন্ন নির্বাচনি পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে বলা হয়, এককভাবে জামায়াতের ভোট বেশি না হলেও যখন তারা বিএনপির সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করে তখন সেই শতাংশ অনেক বেড়ে যায়। এতে বিএনপির সরকার গঠনে যতটা না লাভ হয়, তার চেয়ে অনেক বেশি সুবিধা পায় জামায়াত নিজে। অর্থাৎ বিএনপি তার নির্বাচনি জোট বা ভোটের মাঠে শক্তিশালী আওয়ামী লীগকে মোকাবিলার জন্য জামায়াতের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধলেও তাতে আখেরে লাভবান হয় জামায়াত।

জামায়াত ছাড়লে বরং বিএনপির কিছু নগদ লাভ আছে। যেমন তরুণ প্রজন্মের একটি বড় অংশই জামায়াতের অংশীদার বলে বিএনপিকে পছন্দ করে না। জামায়াত ছাড়লে তাদের অনেকেই হয়তো বিএনপিকে সমর্থন দেবে। জামায়াতের মতো স্বীকৃত যুদ্ধাপরাধীদের দলের সঙ্গে জোটবদ্ধ থেকে বিএনপি বস্তুত মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে খুব বেশি কিছু বলতে পারে না। বিএনপির ভেতরে যারা চান না জামায়াতের সঙ্গে তাদের ঐক্য থাকুক, তারা দলের প্রতি আরও একনিষ্ঠ হবেন এবং বিএনপি সবসময়ই যুদ্ধাপরাধীদের পৃষ্ঠপোষকতা দেয়—এই অভিযোগ থেকেও তারা মুক্তি পাবে।

তবে খালেদা জিয়ার পরে বিএনপি যদি ভেঙে যায় তখন আওয়ামী লীগের ‍বিরোধী শক্তি হিসেবে জামায়াত নতুন নামে নতুন কর্মসূচি নিয়ে দেশের রাজনীতিতে নতুন কোনও মেরুকরণ তৈরি করতে পারে বলে কেউ কেউ মনে করেন। এ কারণে মাঝে মধ্যে মনে হয়, বিএনপির কি এই আশঙ্কায় আছে যে তারা জামায়াতকে ছেড়ে দিলে এককভাবে জামায়াত দেশে আওয়ামীবিরোধী নতুন কোনও শক্তি হয়ে উঠবে, যা একসময় বিএনপির জন্যই হুমকি তৈরি করবে? অর্থাৎ জামায়াত যদি বিএনপির রাজনীতিটাই করে দেয়, তাহলে আর বিএনপিকে কী দরকার— এরকম একটি দূরবর্তী ভীতি কি বিএনপির মধ্যে কাজ করছে? কিন্তু একথা দ্ব্যর্থহীনভাবে বলা যায়, মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত এই দেশে জামায়াতের মতো দল কখনোই এককভাবে কিছু করতে পারবে না।

Related posts

Leave a Comment

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com