রাজনীতি 

কোন পথে বিএনপি, জানেন না সিনিয়র নেতৃবৃন্দ

কোন পথে বিএনপি, জানেন না সিনিয়র নেতৃবৃন্দ

নিউজ ডেস্ক : দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বিগত এক বছরের বেশি সময় ধরে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া কারাগারে রয়েছেন। এরপর থেকে লন্ডনে বসে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও দলের স্থায়ী কমিটির যৌথ নেতৃত্বে বিএনপি পরিচালিত হয়ে আসছে। তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবি, উপজেলা নির্বাচন বয়কট, বিদ্রোহ-গণ পদত্যাগ ও বহিষ্কারের মাঝে দলটির মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে হ-য-ব-র-ল অবস্থা। প্রশ্নের মুখে পড়েছে দলীয় নেতৃত্ব।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বিভিন্ন বিষয়ে দলের মধ্যে মতপার্থক্য দেখা দিয়েছে। একটি অংশ আরেকটি অংশের প্রতি ব্যর্থতার অভিযোগ করে দায়িত্ব থেকে সরে যাওয়ার দাবি পর্যন্ত তুলেছে। বিভিন্ন ইস্যুতে তৃণমূল নেতাকর্মীদের সঙ্গে প্রকাশ্যে বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়ছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। এ অবস্থায় প্রশ্ন উঠছে, বিএনপিতে আসলে কি হচ্ছে? বিএনপির রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ কি? অগোছালো বিএনপি কি শেষ পর্যন্ত মুসলিম লীগের মতো বিলুপ্ত হয়ে যাবে?

এই বিষয়ে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, এক যুগ ধরে দল ক্ষমতার বাইরে। সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির পর দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে নতুন করে হতাশা ও অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। সেই হতাশা থেকেই বিএনপি নেতারা বিভিন্ন ধারায় বিভক্ত হয়ে পড়ছেন। এতে করে দল সাংগঠনিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়ছে। যার সুযোগ নিয়ে ক্ষমতাসীনরা বিএনপিকে সহজেই দাবিয়ে রাখতে সক্ষম হচ্ছে। এগুলো দলের জন্য ভালো লক্ষণ নয়।

দলের বর্তমান অবস্থায় ক্ষোভ প্রকাশ করে দলটির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, বিএনপির বড় বড় পদে বসে আছেন ব্যর্থ সব লোকজন। বড় বড় কথা বললেও কাজে নেই তারা। আন্দোলনের সময় তিনটি কম্বল মুড়ি দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন, আইন-আদালতের অজুহাত দেন। আহা রে বিএনপি! অন্যের দয়ায় কোন রকমে শ্বাস নিচ্ছে!

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মতে, হামলা-মামলার ভয় নিয়ে বিএনপি করা যাবে না। যারা পারবেন না তারা দায়িত্বশীল পদ থেকে সরে গেলে বিএনপি অন্তত মুক্তি পাবে।

দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য মওদুদ আহমদ অবশ্য বলছেন ভিন্ন কথা। তিনি বলেন, বিএনপি একটা দুঃসময় পার করছে। তবে এটি দীর্ঘস্থায়ী নয়। সময় হলে সব ঠিক হয়ে যাবে। সেই সময়ের অপেক্ষা করতে হবে। মূলত নতুন কর্মসূচি, ব্যর্থতা নিয়ে বড় বড় কথা বলছেন, তারা আদতে বিএনপিকে ভেঙে নতুন দল গঠন করার পায়তারা করছেন। অনেকেই আবার ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে আঁতাত করে চলছেন। বিএনপিকে পুঁজি করে তারা বেঁচে আছেন।

তিনি আরো বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে ‘মনোনয়ন বাণিজ্যে’র পর এখন ‘বহিষ্কার বাণিজ্য’ হবে। নির্বাচনের পরে টাকা খেয়ে এদের বহিষ্কারাদেশ তুলে নেওয়া হবে। পথ হারিয়েছে বিএনপি। আমরা জানি না কোন পথে যাচ্ছে বিএনপির রাজনীতি।

Related posts

Leave a Comment

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com